ফেসবুকে বন্ধুত্ব, দেখা করতে গিয়ে রাজশাহীতে গণধর্ষণের শিকার

366

রাজশাহী, আগস্ট ০২: রাজশাহীতে এক তরুণীকে আবাসিক হোটেলে নিয়ে গণধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। প্রায় ২৫ বছর বয়সী ওই তরুণীর বাড়ি চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলায়।

পুলিশ বলছে, সম্প্রতি রাজশাহীর দুই যুবকের সঙ্গে ফেসবুকে বন্ধুত্ব হয় ওই তরুণীর। এর পর তাদের সঙ্গে দেখা করতে এসে ধর্ষণের শিকার হন তিনি।

সোমবার দুপুরে রাজশাহী মহানগরীর শাহমখদুম থানা এলাকার গ্রীন গার্ডেন রেস্টহাউস নামে একটি আবাসিক হোটেলে এই গণধর্ষণের ঘটনা ঘটে। এই ঘটনায় তরুণীটি রাতে থানায় মামলা করেছেন। পরে ফরেনসিক পরীক্ষার জন্য মঙ্গলবার রাতে তাকে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি) পাঠায় পুলিশ। এরপরই ঘটনাটি জানাজানি হয়।

অবশ্য এর আগে মামলা দায়েরের পরই পুলিশ অভিযুক্ত দুই যুবককে গ্রেপ্তার করেছে। তারা হলেন- নগরীর বোয়ালিয়া থানার সাগরপাড়া এলাকার আবদুল হালিমের ছেলে আবদুল আলম ওরফে বাদশা (৩০) এবং জেলার বাগমারা উপজেলা সদরের আবুল খায়ের ওরফে নাহিদ (২৬)। তাদের মধ্যে বাদশা পেশায় শিক্ষক বলে জানিয়েছে পুলিশ।

ওই তরুণীর উদ্ধৃতি দিয়ে নগরীর শাহমখদুম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জিল্লুর রহমান বলেন, “ফেসবুকে বাদশা ও নাহিদের সঙ্গে বন্ধুত্ব হয়েছিল ওই তরুণীর। এরপর তাদের সঙ্গে দেখা করতে রাজশাহী আসেন তিনি। সোমবার দুপুরে তাকে নিয়ে রেস্ট হাউসে যান ওই দুই যুবক। পরে সেখানে প্রথমে বাদশা ও পরে নাহিদ তাকে ধর্ষণ করেন। এরপর তারা তরুণীকে রেখে পালিয়ে যান।”

এ ঘটনার পর রাতে ওই তরুণী নিজে থানায় গিয়ে মামলা করেন। মামলার পর মঙ্গলবার ভোরে অভিযান চালিয়ে ওই দুই যুবককে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে মঙ্গলবার রাতে ওই তরুণীকে রামেক হাসপাতালের ওসিসিতে পাঠানো হয়। এছাড়া ওই আবাসিক হোটেল থেকে ধর্ষণের নানা আলামত সংগ্রহ করা হয়েছে বলেও জানান পুলিশের এই কর্মকর্তা।